"> পাড়া-মহল্লায়ও বিশেষ অভিযান হবে- জানালেন র‌্যাব মুখপাত্র পাড়া-মহল্লায়ও বিশেষ অভিযান হবে- জানালেন র‌্যাব মুখপাত্র – News vision
  1. admin@newsvision.us : admin :
  2. info@newsvision.us : newsvision :
বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ১১:১৮ অপরাহ্ন

পাড়া-মহল্লায়ও বিশেষ অভিযান হবে- জানালেন র‌্যাব মুখপাত্র

নিউজ ভিশন ডেস্ক ::
  • পোষ্ট করেছে : রবিবার, ৪ জুলাই, ২০২১
  • ৪০ জন দেখেছেন

রোনা সংক্রমণ রোধে কঠোর লকডাউনের তৃতীয় দিনে রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে মানুষের চলাচল কিছুটা বেড়েছে। পাড়া-মহল্লার অলিগলিতেও বেড়েছে মানুষের জটলা। মহল্লার বাজারগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত। মাস্ক নেই বেশিরভাগ মানুষের মুখে। তবে সেনাবাহিনী, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি), পুলিশ ও র‌্যাব গতকাল শনিবারও ছিল কঠোর অবস্থানে। বিনা প্রয়োজনে বাইরে আসার পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ না করায় রাজধানীতে ৬২১ জনকে গ্রেপ্তার এবং ৩৪৬ জনকে এক লাখ ছয় হাজার ৪৫০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এদিকে র‌্যাব জানিয়েছে, সরকার নির্দেশিত বিধিনিষেধ মানাতে পাড়া-মহল্লায় বিশেষ অভিযান চালানো হবে। আর গতকাল সারাদেশে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত ২৭৭ জনকে এক লাখ ৯৮ হাজার ১৭৫ টাকা জরিমানা করেছে। গতকাল রাসেল স্কয়ারে লকডাউনে র‌্যাবের কার্যক্রম পরিদর্শন শেষে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যেও যারা বাইরে বের হচ্ছেন তাদের অনেকেই সঠিকভাবে মাস্ক পরছেন না। সচেতনতার পাশাপাশি তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থাও নেওয়া হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, পাড়া-মহল্লায় দোকান ঘিরে জমায়েতের ঘটনা হচ্ছে।

স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। তিনি পরিবারের কথা বিবেচনায় এনে সরকারি বিধিনিষেধ মানার জন্য সবার প্রতি অনুরোধ করে বলেন, পরিবারে একজন আক্রান্ত হলে অন্যদের জন্য ঝুঁকি তৈরি হবে। তাই লকডাউনে ঘরে থাকতে হবে। অন্যথায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পাড়া-মহল্লায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হবে। র‌্যাবের এই কর্মকর্তা জানান, লকডাউন বাস্তবায়নে র‌্যাব এখন পর্যন্ত চার শতাধিক ভ্রাম্যমাণ আদালত চালিয়েছে। দেশজুড়ে নিয়মিত টহল ও চেকপোস্টের বাইরে চার শতাধিক অতিরিক্ত চেকপোস্ট পরিচালনা করা হচ্ছে।

গত বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার লকডাউন কঠোরভাবেই পালিত হয়েছে। রাস্তা ছিল ফাঁকা। কিন্তু গতকাল শনিবার মগবাজার, মৌচাক, মালিবাগ, বাড্ডা, শান্তিনগর, কাকরাইল, পল্টন, মতিঝিল, মৎস্যভবন, শাহবাগ, বাংলামটরসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, প্রধান সড়ক এবং পাড়া-মহল্লায় মানুষের চলাচল বেড়েছে। গাড়ির সংখ্যাও ছিল বেশি। নানা প্রয়োজনের অজুহাতে মানুষ বের হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করে বাজার ও দোকানপাটে ভিড় করছে। মাস্ক ব্যবহারের বাধ্যবাধকতা থাকলেও অনেকেই মানছেন না।

গতকাল সকাল ১১টায় মগবাজার রেলগেটের অদূরে পেয়ারাবাগ কাঁচাবাজারে গিয়ে দেখা যায়, বেশিরভাগ দোকানি এবং কর্মচারীর মুখে মাস্ক নেই। ক্রেতারাও মাস্ক ব্যবহারের তোয়াক্কা করছেন না। দোকানের সামনে একজন আরেকজনের থেকে দূরত্বও বজায় রাখছেন না। আব্দুল গনি নামে এক ব্যক্তির কাছে মাস্ক ব্যবহার না করার কারণ জানতে চাইলে তিনি ঝটপট বললেন, ‘আছে তো’। এরপরই প্যান্টের পকেট থেকে মাস্ক বের করে দেখালেন।

দুপুর পৌনে ১টায় পল্টনের নাইটিঙ্গেল মোড়ের চেকপোস্টে পুলিশ এক ব্যক্তির কাছে ঘর থেকে বের হওয়ার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, তিনি বেসরকারি ব্যাংকে চাকরি করেন। এখন ব্যাংকের উদ্দেশে বের হয়েছেন। কিন্তু পুলিশ শনিবার ব্যাংক বন্ধ থাকার কথা স্মরণ করিয়ে দিলে ওই ব্যক্তি ক্ষমা চান। তখন তাকে বাসায় ফিরিয়ে দেওয়া হয়। ওই সময় রিকশায় ফকিরাপুলের দিকে যাচ্ছিলেন তিন তরুণ। পুলিশ তাদের দু’জনকে রিকশা থেকে নামিয়ে দিয়ে স্বাস্থ্যবিধির কথা মনে করিয়ে দেয়।

ঢাকা মহানগর পুলিশের মতিঝিল বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার আ. আহাদ সাংবাদিকদের জানান, ভোর ৬টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত মতিঝিল বিভাগের সাতটি থানা এলাকায় সাত ঘণ্টায় ১৫২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের কেউ মাস্ক ছাড়া, কেউ অপ্রয়োজনে বাইরে এসেছিলেন। আবার কেউ বিধিনিষেধ ভঙ্গ করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলেছিলেন।

দুপুর দেড়টায় শান্তিনগরের বাজারে দেখা যায় অধিকাংশ ক্রেতার মুখে মাস্ক নেই। দোকানি ও কর্মচারীরাও মাস্ক পরিধান করছেন না। মানুষের ভিড় রয়েছে চোখে পড়ার মতো। শহিদুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তির মুখে মাস্ক রয়েছে। বাজার করতে এসেছেন। তিনি বলেন, সবাই যদি মাস্ক পরিধান করে তাহলে কিছুটা হলেও নিরাপদে থাকা সম্ভব। কিন্তু আশপাশের বেশিরভাগ মানুষের মুখে মাস্ক নেই। পূর্ব রাজাবাজারে বেশিরভাগ দোকান খোলা ছিল। ওইসব দোকানকে কেন্দ্র করে মানুষের জটলা ছিল। মোড়ে মোড়ে তরুণদের আড্ডা দিতেও দেখা যায়।

সরেজমিন দেখা গেছে, রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাশি করছে পুলিশ। সেনাবাহিনী, বিজিবি এবং র‌্যাব সদস্যরাও সড়কে তল্লাশি চালান। গতকাল দুপুর আড়াইটার দিকে রমনার সার্কিট হাউসের সামনের সড়কে সেনাবাহিনীর সদস্যরা পথচারী ও বিভিন্ন গাড়ি থামিয়ে বাইরে বের হওয়ার কারণ জানতে চান। বিকেল পৌনে ৪টায় তেজগাঁও শিল্পাঞ্চলের উত্তর বেগুনবাড়ী এলাকায় সেনাবাহিনীর সদস্যদের টহল দিতে দেখা যায়। সেনাবাহিনীর গাড়ি দেখে অনেকেই রাস্তা থেকে সরে যান।

র‌্যাব সদর দপ্তর জানিয়েছে, লকডাউনের বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে র‌্যাব গতকাল সারাদেশে ১৭২টি টহল টিম ও ১৮১টি চেকপোস্টে তল্লাশি চালিয়েছে। ৩১টি ভ্রাম্যমাণ আদালতে ২৭৭ জনকে এক লাখ ৯৮ হাজার ১৭৫ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এর আগের লকডাউনগুলোতে গাবতলীসহ অন্যান্য বাস টার্মিনাল থেকে মাইক্রোবাস, প্রাইভেটকারে ঢাকার বাইরে যেতে দেখা গেলেও এবার সেই সুযোগ নেই। গতকাল গাবতলী বাস টার্মিনালে গিয়ে সুনসান নীরবতা দেখা গেছে। টার্মিনালে সারি সারি বাসের জটলা আছে। কয়েকজন হেলপার ও টার্মিনালের ভেতরের লোকজন ছাড়া বাইরের লোকজনের উপস্থিতি নেই।

এই প্রতিনিধি যাত্রী পরিচয়ে বগুড়া যাওয়ার ইচ্ছে জানালে একজন হেলপার বলেন, কোনো সুযোগ নেই। গণপরিবহন বন্ধ। মাইক্রোবাস ও প্রাইভেটকারও চলছে না। গত লকডাউনে এই টার্মিনালের সামনে থেকে ও ভেতর থেকে মাইক্রোবাস ও প্রাইভেটকারে ঢাকার বাইরে যাওয়ার সুযোগ ছিল। তখন যাত্রীদের কাছ থেকে ৩-৪ গুণ বেশি ভাড়া নেওয়া হয়েছিল। এবার বেশি ভাড়া দিয়েও কোনো মাধ্যমে ঢাকার বাইরে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020 News Vision LTD It's a TM Registered News Organization
Design & Development Freelancer Zone