"> আমপাতায় আমন্ত্রণপত্র রাষ্ট্রপতিকে পদ্মশ্রী করিমুল হকের আমপাতায় আমন্ত্রণপত্র রাষ্ট্রপতিকে পদ্মশ্রী করিমুল হকের – News vision
  1. admin@newsvision.us : admin :
  2. info@newsvision.us : newsvision :
সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ১০:০২ পূর্বাহ্ন

আমপাতায় আমন্ত্রণপত্র রাষ্ট্রপতিকে পদ্মশ্রী করিমুল হকের

কলকাতা ডেস্ক ::
  • পোষ্ট করেছে : শুক্রবার, ৯ এপ্রিল, ২০২১
  • ৫৮ জন দেখেছেন

আমপাতায় আমন্ত্রণ পত্র। প্রাপক রাষ্ট্রপতি। প্রেরক পদ্মশ্রী করিমুল হক। হ্যাঁ, ঠিকই শুনেছেন। ভাইঝির বিয়ে উপলক্ষে বাড়ির আম গাছ থেকে পাতা পেড়ে বাড়ির লোকেদের দিয়ে নিমন্ত্রণ পত্র লেখালেন করিমুল। সেই নিমন্ত্রণ পত্র রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, মুখ্যমন্ত্রী, সহ অন্যান্য বিশিষ্টজনদের পাঠালেন পদ্মশ্রী করিমুল হক।

কেন এমন নিমন্ত্রণ পত্র বানালেন বাইক অ্যাম্বুলেন্স দাদা পদ্মশ্রী করিমুল হক?‌ পদ্মশ্রী করিমুল হকের পরিবারে রয়েছে ৩ ভাই ৩ বোন। আগামী ৪ এপ্রিল তার দাদা খলিলুর রহমানের মেয়ে খালেদা বানুর বিয়ে হবে ক্রান্তি এলাকার বাসিন্দা আলাউদ্দিন হোসেনের সঙ্গে। খলিলুর বাবু পেশায় একজন ক্ষুদ্র কৃষক। তার একার সামর্থ্য নেই মেয়ের বিয়ে দেওয়ার। তাই তিনি দারস্থ হন ভাই করিমুল হকের কাছে।

করিমুল হকের নিজের আর্থিক অবস্থাও তেমন সচ্ছল নয়। তাই বাজার থেকে দামী কার্ড কিনে সেই কার্ড ছাপিয়ে মানুষকে আমন্ত্রণ জানানো তার সাধ্যাতীত। অবশেষে অভিনব চিন্তা তার মাথা থেকে বের হয়। বাড়ির আম গাছ থেকে পাতা পেড়ে বাড়ির লোকেদের আমপাতায় আমন্ত্রণপত্র লেখালেন পদ্মশ্রী করিমুল। সেই আমন্ত্রণ পত্র রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, মুখ্যমন্ত্রী, সহ অন্যান্য বিশিষ্টজনদের পাঠালেন তিনি। করিমুল হক বলেন, ‘‌আমার মায়ের বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর পর আমি শপথ নিয়েছিলাম গ্রামের কাউকে বিনা চিকিৎসায় মরতে দেবনা। এরপর আমি আমার বাইককে অ্যাম্বুলেন্স বানাই। এখনও পর্যন্ত আমি প্রায় ৬৫০০ মানুষকে চিকিৎসার জন্য বাইকে করে হাসপাতালে পৌঁছে দিয়েছি। এর জন্য ভারত সরকার আমাকে পদ্মশ্রী সম্মান দিয়েছে। আমি পদ্মশ্রী সম্মান পাওয়ার পর থেকে প্রচুর মানুষ এবং বিভিন্ন সংগঠন আমাকে আর্থিক সাহায্য করেছে। কিন্তু সেই টাকা আমি ব্যাক্তিগত কাজে খরচ করিনি। সেই টাকা দিয়ে আমি আমার বাড়িতে দোতলা হাসপাতাল বানিয়েছি। যেখানে বিভিন্ন চিকিৎসকেরা আসেন। সাধারণ মানুষ নিখরচায় চিকিৎসা পায়।
টাকা সাশ্রয় করতেই আম পাতা দিয়ে কার্ড তৈরী করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। তিনি বলেন, ‘‌আমি প্রচুর মানুষকে নিমন্ত্রণ করছি। কিন্তু একথাও বলছি, আমার আর্থিক সঙ্গতি নেই তাই আমি খাওয়াতে পারবনা। ওই দিন আমার বাড়িতে এসে আমার ভাইঝিকে আশীর্বাদ করে যাওয়ার কথা সবাইকে বলছি। আমি এই কার্ড রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, মুখ্যমন্ত্রী সহ অন্যান্য বিশিষ্টজনদেরও পাঠাচ্ছি।

এখন করিমুলের বাড়িতে সাজো সাজো রব। সকাল থেকে নাওয়া খাওয়া ভুলে আম পাতা পেড়ে তাতে নিমন্ত্রণ পত্র লিখছেন বাড়ির সবাই। সেই কার্ডে থাকছে হিন্দু, মুসলমান, খিষ্টান, বৌদ্ধ সহ সর্বধর্মের প্রতীক। পাশাপাশি তাতে মেহেন্দি ও সিঁদুরের টিপ লাগিয়ে সর্বধর্ম সমন্বয়ের মাধ্যমে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বার্তাও দিলেন তিনি।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020 News Vision LTD It's a TM Registered News Organization
Design & Development Freelancer Zone