"> মামুনুল হক গ্রেফতার, বাধা পায়নি পুলিশ : ডিসি তেজগাঁও মামুনুল হক গ্রেফতার, বাধা পায়নি পুলিশ : ডিসি তেজগাঁও – News vision
  1. admin@newsvision.us : admin :
  2. info@newsvision.us : newsvision :
সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ০৯:৩৯ পূর্বাহ্ন

মামুনুল হক গ্রেফতার, বাধা পায়নি পুলিশ : ডিসি তেজগাঁও

নিউজ ভিশন ডেস্ক ::
  • পোষ্ট করেছে : রবিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২১
  • ৬২ জন দেখেছেন

।। জরুরি বৈঠক হেফাজত নেতারা

।। সতর্ক অবস্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী

হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম-মহাসচিব মামুনুল হককে গ্রেফতার করতে প্রায় দুই শতাধিক পুলিশ সদস্য নিয়ে উপস্থিত হয়েছিল পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের কর্মকর্তারা। আশংকা ছিল তাকে গ্রেফতারের পর মাদরাসার শিক্ষার্থী ও হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীদের বাধার মুখে পড়বে পুলিশ। তবে তা হয়নি। খুব স্বাভাবিকভাবেই মামুনুলকে গ্রেফতার করে নিয়ে আসে পুলিশ।

সোমবার (১৮ এপ্রিল) দুপুরে গ্রেফতারের পর তাকে প্রথমে আনা হয় তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) কার্যালয়ে। এরপর নিয়ে যাওয়া হয় মোহাম্মদপুর থানায়। দুপুর পৌনে ২টার দিকে মামুনুল হককে গ্রেফতারের পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তেজগাঁও বিভাগের উপ কমিশনার (ডিসি) মো. হারুন-অর-রশিদ।

ডিসি হারুন বলেন, মামুনুলকে গ্রেফতারের পর মাদরাসার শিক্ষার্থী ও হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীদের বাধার মুখে পড়েনি পুলিশ। খুব স্বাভাবিকভাবেই মামুনুলকে গ্রেফতার করে নিয়ে আসে পুলিশ।

তিনি বলেন, ২০২০ সালের মোহাম্মদপুর থানার একটি ভাঙচুর ও নাশকতার মামলায় তদন্ত চলছিল। তদন্তে হেফাজত নেতা মামুনুলের সম্পৃক্ততার বিষয়টি সুস্পষ্ট হওয়ায় আমরা তাকে গ্রেফতার করেছি। এছাড়া দেশের বিভিন্ন স্থানে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে, তা আপনারা জানেন।

এক প্রশ্নের জবাবে ডিসি হারুন বলেন, বায়তুল মোকাররম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, হাটহাজারীর ঘটনার পর থেকেই তিনি নজরদারিতে ছিলেন। সবকিছু মিলিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে আপাতত মোহাম্মদপুর থানার মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। তাকে আদালতে নেওয়া হবে কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে এ পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, সোমবার তাকে আদালতে নেওয়া হবে। তবে রিমান্ড চাওয়া হবে কি না তা ঊর্ধ্বতনদের সঙ্গে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। রোববার দুপুর ১২টা ৫০মিনিটের দিকে মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া মাদরাসা থেকে মামুনুলকে গ্রেফতার করা হয়।

 

তেজগাঁও থানায় ইফতার

গ্রেফতারের পর তেজগাঁও থানায় নেয়া হয়। সেখানেই মামুনুল হক ইফতার ও মাগরিবের নামাজ আদায় করেন। থানা পুলিশ তার ইফতারের ব্যবস্থা করেন। রোববার (১৮ এপ্রিল) সন্ধ্যায় তেজগাঁও জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) মো. মাহমুদ খান এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, দুপুরে গ্রেফতারের পর তেজগাঁও ডিসি স্যারের কার্যালয় থেকে তেজগাঁও থানায় মামুনুল হককে আনা হয়। যেহেতু তিনি রোজা ছিলেন সেহেতু থানা পুলিশ তার ইফতারের ব্যবস্থা করে।

আজকে মামুনুলকে পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) হেফাজতে নেয়া হবে কি-না জানতে চাইলে মাহমুদ খান বলেন, আমাদের তেজগাঁও বিভাগের ঊর্ধ্বতন স্যারেরা থানায় আসবেন। এরপর সিদ্ধান্ত হবে তাকে আজকে ডিবিতে নেয়া হবে কি-না।

এদিকে, তেজগাঁও থানা সূত্র থেকে জানা যায়, ইফতারের আগে মামুনুলের জন্য ইফতারের ব্যবস্থা করা হয়। এরপর ইফতার শেষে তিনি থানাতেই নামাজ আদায় করেন। সন্ধ্যার পর থানায় তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ডিবিতে হস্তান্তর করা হবে।

এর আগে, দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটের দিকে মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া মাদরাসা থেকে মাওলানা মামুনুল হককে গ্রেফতার করা হয়। বেশ কিছুদিন ধরে তিনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের নজরদারিতে ছিলেন। গ্রেফতারের পর বেলা পৌনে ২টার দিকে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. হারুন-অর-রশিদ।

তিনি বলেন, ২০২০ সালের মোহাম্মদপুর থানার একটি ভাঙচুর ও নাশকতার মামলার তদন্ত চলছিল। তদন্তে হেফাজত নেতা মামুনুলের সম্পৃক্ততার বিষয়টি সুস্পষ্ট হওয়ায় আমরা তাকে গ্রেফতার করেছি। এছাড়া দেশের বিভিন্ন স্থানে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে, তা আপনারা সবাই জানেন।

এক প্রশ্নের জবাবে ডিসি হারুন বলেন, জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, হাটহাজারীর ঘটনার পর থেকেই তিনি নজরদারিতে ছিলেন। সবকিছু মিলিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে আপাতত মোহাম্মদপুর থানার মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

তাকে আদালতে হাজির করার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, আগামীকাল সোমবার (১৯ এপ্রিল) তাকে আদালতে হাজির করা হবে। তবে রিমান্ড চাওয়া হবে কি-না তা ঊর্ধ্বতনদের সঙ্গে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

অতপর ডিবি কার্যালয়ে …

মামুনুল হককে গ্রেফতারের পর রাজধানীর মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে নেয়া হয়।

রোববার মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসা থেকে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) তেজগাঁও বিভাগ মামুনুলকে গ্রেফতার করে। ডিএমপির গোয়েন্দা বিভাগের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনায় ও অন্যান্য মামলার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মামুনুলকে আমাদের হেফাজতে নেয়া হবে। আজ বিকেলেই তাকে ডিবি কার্যালয়ে নেয়া হবে।

এদিকে, তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. হারুন-অর-রশিদ বলেন, গ্রেফতারের পর মামুনুলকে মোহাম্মদপুর থানায় নেয়া হয়। এরপর তাকে তেজগাঁওয়ের ডিসি কার্যালয়ে নেয়া হয়। পরে সেখান থেকে আবারও মোহাম্মদপুর থানায় নেয়া হয়। তাকে ডিবি কাছে হস্তান্তর করা হবে।

জরুরি বৈঠক হেফাজত নেতারা

হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীর সাধারণ সম্পাদক মামুনুল হকসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের পর অনলাইনে জরুরি বৈঠকে বসতে যাচ্ছেন সংগঠনটির নেতারা।

রোববার (১৮ এপ্রিল) ইফতার শেষে এ বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাটহাজারী মাদরাসার এক হেফাজত নেতা বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন। তবে বৈঠকে কী বিষয়ে আলোচনা হবে এটা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন তিনি।

সূত্র জানায়, মামুনুল হকের রিসোর্টকাণ্ডের পর থেকে হেফাজতের ওপর চড়াও হয়েছে সরকার। এ পরিস্থিতিতে দলের করণীয় কী হতে পারে, তা নিয়ে আলোচনা হবে। হেফাজত কি সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে যাবে নাকি সমঝোতার মাধ্যমে সাম্প্রতিক সময়ের ধকল সামলাবেন, সেসব বিষয়ে আলোচনা হতে পারে।

সতর্ক অবস্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী

হেফাজত নেতাদের গ্রেফতার ইস্যুকে কেন্দ্র করে কেউ যাতে নাশকতা করতে না পারে এজন্য রাজধানীসহ সারাদেশে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে পুলিশ। বিশেষ করে মতিঝিল, পল্টন ও মোহাম্মদপুর থানা এলাকায় কঠোর নিরাপত্তা নেয়া হয়েছে। বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে নেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা। ইতোমধ্যে চট্টগ্রামসহ হেফাজত অধ্যুষিত এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ অবস্থান নিয়েছে।

এছাড়া রাজধানীর বিভিন্ন থানা ছাড়াও মসজিদ, মাদরাসা ও পাড়া-মহল্লায় পুলিশি নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। বিশেষ করে মামুনুলকে গ্রেফতারে পর রাজধানীর মোহাম্মদপুরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। গ্রেফতারের আগে মোহাম্মদপুরে দুই শতাধিক পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

পুলিশের একাধিক সূত্রে জানা যায়, সকালে সব এসপি ও রেঞ্জের ডিআইজিকে স্ব-স্ব জেলার আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত সতর্ক অবস্থানে থাকতে বলা হয়েছে। কেউ যাতে কোনোভাবেই অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটাতে না পারে, মানুষ ও সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি না করতে পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে বলা হয়েছে। প্রয়োজনে আইন-শৃঙ্খলা বিনষ্টকারীদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ডিএমপির একাধিক থানার ওসি জানান, রাজধানীর বিভিন্ন থানায় পুলিশ সদস্য বাড়ানো হয়েছে। অনেক থানার প্রধান ফটকে ভারী অস্ত্রসহ পুলিশ সদস্যরা ডিউটি করছেন। তবে যেসব থানায় ভারী অস্ত্র বসানো হয়নি, তাদের প্রধান ফটকে অস্ত্রসহ লোকবল বাড়াতে বলা হয়েছে। তাছাড়া রাস্তায় বা পাড়া-মহল্লায় চেকপোস্টে পুলিশি তল্লাশির পাশাপাশি বিশেষ নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। মসজিদ, মাদরাসায় পুলিশের গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানোর পাশাপাশি পুলিশের কোনো সদস্য যাতে একা একা ডিউটি না করেন বা বাইরে একা না ঘোরাফেরা করেন সে বিষয় খেয়াল রাখতে বলা হয়েছে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020 News Vision LTD It's a TM Registered News Organization
Design & Development Freelancer Zone